বৃহস্পতিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৬:২২ পূর্বাহ্ন

পাইলট হওয়ার স্বপ্ন পূরণে পাশে আছে ইউএস-বাংলা

  • টাইম আপডেট : শনিবার, ৬ মে, ২০২৩
  • ১৯ কত বার দেখা হয়েছে
পাইলট হওয়ার স্বপ্ন পূরণে পাশে আছে ইউএস-বাংলা

ধন-সম্পদ থাকলেই যেমন লক্ষ্যে পৌঁছানো যায় না, তেমনি অনেক মেধাবী শিক্ষার্থীও পর্যাপ্ত মেধা থাকা সত্ত্বেও সুযোগের অভাবে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারে না। ওড়ার ইচ্ছে অনেকের আছে কিন্তু উড়তে পারছে ক’জন?

শৈশবকালে বাচ্চাদের যদি জিজ্ঞেস করা হয়, বড় হয়ে তুমি কী হতে চাও? কয়েকটি কমন উত্তরের মধ্যে উল্লেখযোগ্য তিনটি হচ্ছে- কেউ ডাক্তার, কেউ ইঞ্জিনিয়ার আবার কেউ পাইলট হতে চায়। মেধাবী হলেই সরকারের শিক্ষানীতির কারণে ডাক্তার কিংবা ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার পথটা কিছুটা সুগম হয়। কিন্তু পাইলট? মেধাবী হলেই হয়ে উঠে না। সঙ্গে প্রয়োজন অর্থবিত্তের। পর্যাপ্ত অর্থবিত্ত না থাকার কারণে অনেক মেধাবীর পাইলট হওয়ার স্বপ্ন, দুঃস্বপ্ন হয়েই থেকে যায়।

 

Celebrating novo mobile

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স বাংলাদেশের অন্যতম বেসরকারি এয়ারলাইন্স। আজ প্রায় ১০ বছর অতিক্রম করতে চলেছে আকাশ পরিবহন ব্যবসায়। বাংলাদেশে বিমান পরিবহন শিল্পে নেতৃত্ব দিয়ে চলেছে। শুরু থেকে একটি অন্যতম সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠান হিসেবে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে। সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে নানাবিধ কাজ ছাড়াও দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে দক্ষ জনশক্তি তৈরিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। ক্রমবর্ধমান চাহিদার বিপরীতে পাইলট সংকটে পতিত হচ্ছে বিশ্বের প্রায় সব বিমানসংস্থা। আর এই সংকট থেকে উত্তরণের জন্য ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স পরিকল্পনামাফিক মেধাবী শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে পাইলট তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে।

 

২০১৪ সালের ১৭ জুলাই দুটি ড্যাশ-৮-কিউ৪০০ নিয়ে যাত্রা শুরু করা ইউএস-বাংলার বিমান বহরে বর্তমানে ৮টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০সহ মোট ১৯টি এয়ারক্রাফট রয়েছে। খুব শিগগিরই ৪৩৯ আসনের দুটি এয়ারবাস ৩৩০ এয়াক্রাফট যুক্ত করতে চলেছে ইউএস-বাংলার বিমান বহরে। যেকোনো বিমানসংস্থার বিমানবহরে এয়ারক্রাফট সংযুক্তির সঙ্গে সঙ্গে অতিরিক্ত পাইলটের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়, কিন্তু তা সহজেই স্বল্পতম সময়ে পূরণ করা যায় না। বহরে নতুন এয়ারক্রাফট সংযোজন ও নতুন রুটের ব্যাপ্তি ঘটানোর পূর্বেই পাইলট নিয়োগের বিষয়টি চূড়ান্ত করা এয়ারলাইন্সের পরিকল্পনারই অংশ।

 

অতিরিক্ত পাইলটের চাহিদা পূরণে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ২০২২ সালের শুরুতে স্টুডেন্ট পাইলট নিয়োগের পরিকল্পনা করে। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর হিউম্যান রিসোর্সের বিশেষজ্ঞদের সহায়তা নিয়ে ২০২২ সালে প্রায় ৬৫০০ জন প্রতিযোগীদের মধ্য থেকে ২১ জনকে নানাবিধ পরীক্ষার পর চূড়ান্তভাবে বাছাই করে। গত ২ মে ২০২৩ প্রথম পর্বে ১০ জন প্রশিক্ষণার্থী যুক্তরাষ্ট্রে ফ্লোরিডায় এপিক ফ্লাইট একাডেমিতে ফ্লাইট ট্রেনিং কোর্স করার জন্য দেশ ত্যাগ করেছেন। কোর্স সূচি অনুযায়ী ৪ মে থেকে স্টুডেন্ট পাইলটদের ট্রেনিং শুরু করেছে এপিক ফ্লাইট একাডেমি। আগামী জুন মাসে দ্বিতীয় পর্বে ১১ জন প্রশিক্ষণার্থী যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশ্যে দেশ ত্যাগ করবেন। ফ্লাইট ট্রেনিং কোর্স শেষ করার পর ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন কমার্শিয়াল পাইলট লাইসেন্স (এফএএ সিপিএল) প্রাপ্ত হবেন প্রশিক্ষণার্থীরা।

 


সফলভাবে ফ্লাইট ট্রেনিং শেষ করার পর ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সে ট্রেইনি ফার্স্ট অফিসার হিসেবে নিয়োগ প্রাপ্ত হবেন, যা একজন পাইলট প্রশিক্ষণার্থীর স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার অপেক্ষায় থাকবে ইউএস-বাংলা।

সঙ্গে এভিয়েশনে দক্ষ জনশক্তি তৈরিতে ইতিহাস সৃষ্টি করবে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। স্টুডেন্ট পাইলটের মতো এভিয়েশনে দক্ষ জনশক্তি তৈরিতে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে। উল্লেখ্য যে, ১৯০ জনের অধিক দেশি ও বিদেশি পাইলট রয়েছে ইউএস-বাংলায়।

লেখক: মোঃ কামরুল ইসলাম, মহাব্যবস্থাপক-জনসংযোগ, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স

নিউজটি শেয়ার করুন সোশ্যাল মিডিয়াতে..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরণের আরো খবর জানতে..